রাজশাহীতে স্বপরিবারে হিন্দু ধর্ম ছেড়ে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজশাহী

রাজশাহী নগরীর বোয়ালিয়া থানা এলাকার একটি পরিবার সনাতন হিন্দু ধর্ম পরিত্যাগ করে স্বেচ্ছায় ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছেন। গত বৃহস্পতিবার (২০ মে) তারা রাজশাহীর নোটারি পাবলিক কার্যালয়ে গিয়ে সনাতন হিন্দু ধর্ম পরিবর্তন করে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন।

শনিবার (২২ মে) এই প্রতিবেদককে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ধর্ম পরিবর্তনকারী শ্যামল কুমার সরকার। তিনি জানান, তার দুই নাবালক শিশু সন্তানদের পক্ষে তিনি নিজেই হলফকারী হয়েছেন।

রাজশাহী নগরীর বোয়ালীয়া থানার সাগড়পাড়া এলাকার মৃত সরজ চন্দ্র সরকারের ছেলে শ্যামল কুমার সরকার (২১)। তার নাম স্ত্রী প্রিয়া সরকার (২০)। শ্যামল কুমারের দুই সন্তানের নাম- বিশ্বজিৎ সরকার (৫) ও রনজিৎ সরকার (২) ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছেন। প্রায় ৮ বছর যাবত নগরীর বিভিন্ন বিল্ডিং এর রং মিস্ত্রির কাজ করেন তিনি। বাবা গত হয়েছেন প্রায় ১৬ বছর হয়েছে, মাও ছেড়ে গেছেন প্রায় ৫ বছর হয়েছে। পরিবারের তেমন কেউ না থাকলেও শ^শুড়বাড়ি ও অন্যান্য আত্মীয় স্বজনেরা সামান্য আপত্তি জানিয়েছেন তার ধর্ম পরিবর্তনে। তারপরও তিনি ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করে অত্যন্ত আনন্দিত।

নোটারি পাবলিকের দ্বারা শ্যামল কুমার সপরিবারে নাম পরিবর্তন করেন। সনাতন ধর্ম পরিবর্তন করে শ্যামল কুমার সরকার তার নাম পরিবর্তন করে রাখেন শামীম হোসেন। অন্যদিকে, তার স্ত্রী প্রিয়া সরকারের পরিবর্তিত নাম মোসা. আমেনা আক্তার প্রিয়া এবং তাদের দুই সন্তানের নাম যথাক্রমে বিশ্বজিৎ সরকারের পরিবর্তে মো. হোসাইন আলী ও রনজিৎ সরকারের পরিবর্তিত না মো. শাহাদাৎ আলী।

ইসলাম ধর্ম গ্রহণের পর শামীম হোসেন (শ্যামল কুমার সরকার) অগ্নিবাণী প্রতিবেদককে বলেন, ‘মূলত আমি ছোট বেলা থেকেই মুসলিম বন্ধু ও ইসলামী বিধি-নিষেধ দেখে আসছি। এছাড়াও টিভি ও অনলাইনের বিভিন্ন ইসলামি অনুষ্ঠানের মাধ্যমে ইসলামের মহত্ব বুঝতে পারি। এছাড়াও ডা. জাকির নায়েকের বৈজ্ঞানিক যুক্তিভিত্তিক ইসলামি ব্যাখ্যা আমাকে বিভিন্ন ভুল জিনিস বুঝতে সহায়তা করে। তাই মাঝে মধ্যে কুরআন ও হাদিসের বই ও অনুষ্ঠানে আকৃষ্ট হই এবং সিদ্ধান্ত নেই সপরিবারে ইসলাম ধর্মে ধর্মান্তরিত হওয়ার।’

তিনি বলেন, ‘সত্যি বলতে সৃষ্টিকর্তা আমাদের সত্য-মিথ্যে যাচাই করার ক্ষমতা দিয়েছেন। জ্ঞান ও বুদ্ধিমত্তা দিয়েছেন সঠিক জিনিস বিচার-বিশ্লেষণের জন্য। সুতরাং কারো দেখানে পথ ভুল না ঠিক সেটা যদি আমি নিজের জ্ঞান ও বুদ্ধি দ্বারা বিচার-বিশ্লেষণ না করেই অনুসরণ করি, তাহলে সেটি হবে অন্ধবিশ্বাস।’

ইসলাম ধর্মে প্রতি আকৃষ্টের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘আমি কোনো ধরনের অন্ধবিশ্বাসের মধ্যে আবদ্ধ থাকতে চাই না। তাছাড়া আমি আমার অনুসন্ধিৎসু মনের দ্বারা জেনেছি- ইসলাম শান্তির ধর্ম, এখানে কোন জাতপাত কিংবা ধনি-গরিবের মধ্যে ভেদাভেদ নেই। এই ধর্মে সকলকে সমান সম্মান দেওয়া হয়েছে, যার কারণে আমি ও আমার পরিবার ইসলামের প্রতি আরও আকৃষ্ট হয়েছি।’

তিনি আরো বলেন, ‘ইসলাম এমন একটি ধর্ম যেখানে সৃষ্টিকর্তার কাছে পৌঁছাতে কোনো মাধ্যমের প্রয়োজন হয়না। জীবনের সকল কিছুর সমাধান এই একটি ধর্মেই রয়েছে। কারো প্ররোচনায় প্ররোচিত না হয়ে অনেক বিশ্লেষণ করে মহাগ্রন্থ আল কোরআন পড়ে সপরিবারে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছি।’

নও মুসলিম শামীম হোসেনের ভাষ্য, ‘ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করায় এলাকার সকলে আমাদের পরিবারকে সাদরে গ্রহণ করেছেন। শুধু তাই নয়, সকলেই আমাদের যথেষ্ট সম্মান ও ভালোবাসাও দিচ্ছেন।’

এই সংবাদটি শেয়ার করুন
Share on Facebook
Facebook
Tweet about this on Twitter
Twitter
Pin on Pinterest
Pinterest

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *