রাজশাহীতে প্রেমিকের বাড়িতে প্রেমিকার অনশন, আত্মহত্যার হুসিয়ারি!

বাঘা প্রতিনিধি, রাজশাহী
রাজশাহীর বাঘার পাকুড়িয়া ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ডে প্রেমিক আব্দুল্লাহর বাসায় টানা ২৫ ঘন্টা যাবৎ বিয়ের দাবিতে অনশন করছেন তার প্রেমিকা। এক জায়গাতেই বিয়ের দাবিতে নিজের আস্তানা গেড়ে বসেছেন ওই তরুণী। নিজের হাত ব্লেড দিয়ে কেটে লিখেছেন প্রেমিকের নাম।

এ বিষয়ে তরুণীর বাবা বাদী হয়ে থানায় লিখিত অভিযোগ করেন। তবে থানায় প্রথমে মামলা না নিলেও পরবর্তীতে একটি অভিযোগ গ্রহণ করেছেন পুলিশ। তবে এখন পর্যন্ত এবিষয়ের কোনো সুরাহা হয়নি।

বৃহস্পতিবার (১১ মার্চ) দুপুর ৪টার দিকেও ওই বাড়িতে অনশন করতে দেখা গেছে ওই তরুণীকে।

কলেজ পড়ুয়া ওই তরুণীর ভাষ্য, ‘৬ মাস আগে গৌরাঙ্গপুর গ্রামের সাজদার রহমানের ছেলে সেনা সদস্য আবদুল্লার সঙ্গে তার প্রেমের সম্পর্ক হয়। তাদের মধ্যে বহুবার দেখা সাক্ষাতও হয়েছে। কিন্তু আবদুল্লাহ তাকে না জানিয়েই গত মঙ্গলবার (০৯ মার্চ) বিয়ের জন্য অন্যত্র মেয়ে দেখেন। এমনকি আগামী শুক্রবার (১২ মার্চ) ওই মেয়েকে বিয়ে করার জন্য দিনক্ষণও করেছে বলে শুনেছি। তারপর থেকেই আবদুল্লার বাড়িতে এসে অনশন শুরু করি।’

এ সময় তরুণী তার হাত ব্লেড দিয়ে কেটে আবদুল্লার নাম লিখে দেখান। এমনকি হুসিয়ারি দিয়ে তিনি বলেন, ‘আব্দুল্লাহ আমাকে বিয়ে না করা পর্যন্ত এই বাড়ি থেকে যাব না, প্রয়োজনে আত্মহত্যা করব।’

এঘটনায় পাকুড়িয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মেরাজুল ইসলাম মেরাজ সরকার জানান, ঘটনাটি জানার পর ওই ওয়ার্ডের মেম্বারকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

ওই এলাকার পাকুড়িয়া ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ড মেম্বর লোকমান হোসেন জানান, ‘চেয়ারম্যান আমাকে অবগত করেছেন। আমি আবদুল্লার বাড়ির লোকজনের সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা করছি। এদিকে শুনেছি, মেয়েটার অনশন শুরু দেখেিআব্দুল্লাহও বাড়ির সব দরজা জানালা এমনকি বাড়ির বাইরের বাথরুমও বন্ধ করে দিয়ে লাপাত্তা হয়েছেন। তার মোবাইল ফোনও বন্ধ।’

এ বিষয়ে বাঘা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম বলছেন, ‘এটি একটি বিব্রতকর ঘটনা। মেয়ের বাবার পক্ষ থেকে একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। চেষ্টা চলছে উভয় পক্ষের সাথে বসে সমস্যা সমাধানের। কিন্তু ছেলেই লাপাত্তা থাকায় তা সম্ভব হচ্ছে না।’

অগ্নিবাণী/এফএ

এই সংবাদটি শেয়ার করুন
Share on Facebook
Facebook
Tweet about this on Twitter
Twitter
Share on Whatsapp
Whatsapp
Pin on Pinterest
Pinterest

Leave a Reply

Your email address will not be published.