ডাকসু ভিপি নূরের টেন্ডার বাণিজ্যের ফোনালাপ ফাস

ডেস্ক নিউজ

সম্প্রতি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) ভিপি নুরুল হক নুরকে এক ব্যক্তির সাথে ব্যবসায়িক কথাবার্তার ফোনালাপ ফাঁস হয়েছে। ফোনালাপে নুরুল হক নুরকে জনৈক এক ব্যক্তির সঙ্গে ব্যবসায়িক কথাবার্তা বলতে শোনা গেছে।

সূত্রে জানা যায়, প্রবাসী এক বাংলাদেশির সঙ্গে টেলিফোনে ‘১৩ কোটি টাকার নির্মাণ কাজ’ বিষয়ে কথা বলতে শোনা গেছে। অডিও ক্লিপটিতে ওই প্রবাসী ব্যক্তি ভিপি নুরকে ই-মেইল অ্যাড্রেসসহ ব্যাংক অ্যাকাউন্টের নম্বর পাঠাতে বলেন।

গত ৩ ডিসেম্বর একটি বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলে ডাকসু ভিপি নুরুল হক নুরের ওই অডিও ক্লিপটি ফাঁস করা হয়। এরপর তাৎক্ষণিকভাবে জানতে চাইলে ফাঁস হওয়া ফোনালাপের একটি কণ্ঠ যে তারই তা স্বীকারও করেন ভিপি নুর।

১৩ কোটি টাকার নির্মাণ কাজ পাইয়ে দিতে ভিপি নুরের তদবির বিষয়ে ফোনালাপটি ফাঁস হওয়ার ঘটনায় ভিপি পদ থেকে নুরের বহিষ্কারের জন্য আহ্বান জানিয়েছেন সমাজবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক ও মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের উপদেষ্টা অধ্যাপক মোজাম্মেল হক। ভিপি নুরের এমন ফোনালাপ ফাঁস হওয়ার পর মঙ্গলবার রাতেই ফেসবুক লাইভে নুরকে বহিষ্কার করতে ঢাবি উপাচার্যের প্রতি দাবি জানিয়েছেন তিনি। এ নিয়ে বুধবার ডাকসু ভবনের সামনে মানববন্ধন ও নুরের কুশপুত্তলিকা দাহ করার কথাও ফেসবুক লাইভে জানান ওই শিক্ষক। পরে নুরের পদত্যাগের দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) শিক্ষার্থীরা নুরের পদত্যাগের দাবিতে কুশপুত্তলিকা দাহ করে।

এছাড়াও জানা যায়, পটুয়াখালীর গলাচিপা উপজেলার চর বিশ্বাস ইউনিয়নে নুরের দরিদ্র পরিবার বসবাস করেন। ব্যবসায়ী পিতার সামান্য আয়েই চলতো নুরের পরিবার। তবে ঢাকায় বসবাসরত নুরের জীবনেও ছিল দারিদ্রতার ছোঁয়া। তবে ‘বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ’ এর সৃষ্টির পর থেকেই নুরের জীবনে বিলাসী হাওয়া লাগে। নিয়মিত যে কোন সেমিনারে নুরের আগমন ঘটে দামি গাড়িতে চড়ে, গায়ে দেন নতুন পাঞ্জাবি, হাতে দামি ঘড়ি। নুরের হাতের মুঠোফোনটিও বেশ দামি। ইতোমধ্যে বিয়েও করেছেন ভিপি নুর, চলতি বছরের ২১ মার্চ বাবা হয়েছেন। তবে রহস্যজনক ভাবে বাবা হবার বিষয়টি প্রথমে মিডিয়াতে আড়াল করতে চেয়েছেন ভিপি নুরের পরিবার।

দরিদ্র পরিবারের সন্তান নুরের হঠাৎ বিলাসী জীবনধারণের জন্যে টাকার উৎস কি- এমনটি রয়ে গিয়েছে আড়ালেই। সচেতন নাগরিকরা মনে করেন, ভিপি নুরের আয়ের উৎস ও সম্পদ শীঘ্রই খতিয়ে দেখা জরুরি।

এই সংবাদটি শেয়ার করুন
Share on Facebook
Facebook
Tweet about this on Twitter
Twitter
Pin on Pinterest
Pinterest

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *